মান্দায় আ’লীগ নেতার বিরুদ্ধে সংখ্যালঘু পরিবারের জমি দখলের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিনিধি : নওগাঁর মান্দায় এক আ’লীগ নেতা এবং কতিপয় প্রভাবশালী ভূমিদস্যুদের ভাড়াটিয়া গুন্ডাবাহিনীর বিরুদ্ধে সংখ্যালঘু পরিবারের জমি দখল করে ইট দিয়ে স্থাপনা নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সম্পত্তি উদ্ধারে মান্দা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী মকুল চন্দ্র সরকার। তিনি মান্দা উপজেলাস্থ মৈনম ইউপি’র মৈনম মংলা পাড়া গ্রামের মৃত গোপাল চন্দ্র সরকারের ছেলে।

জানা গেছে, মোংলাপাড়া মৌজার আর এস ৯৭ এবং ৫৩ নং খতিয়ানের ১৭৫ ও ১৭৬ দাগে ২ শতাংশ জমি, নক্সাতে ৪ শতাংশ যাহা ৪৩ থেকে আগত। দরখাস্তকারী মকুল চন্দ্র সরকারের উত্তর পূর্বাংশে ২ শতাংশ দখল করে গত ১৫ অক্টোবর থেকে ওই বিবাদমান জমির গাছপালা কর্তন করে স্থাপনা নির্মাণ করছে উপজেলার মৈনম ইউনিয়নের ভদ্রসেনা গ্রামের মৃত রামচরণ সরকারের ছেলে এবং মৈনম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সামন্ত কুমার সরকার, স্বপনের দুই ছেলে সুমন এবং তাপস, মনোরঞ্জনের ছেলে নয়ন, নিবারনের ছেলে কেশবসহ মোংলাপাড়া গ্রামের চিহ্নিত ডলার ব্যবসায়ী আব্দুস সালামের ছেলে এরশাদ আলী,আক্কাছ আলী’র ছেলে এনামুল হক গংরা।

বিষয়টি থানা পুলিশকে অবগত করা হলেও তারা কোনো কর্ণপাত করেনি। আর এ জন্য জমি ফেরতসহ ন্যায়বিচার পেতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন ভূক্তোভূগীরা।

অভিযুক্ত সামন্ত কুমার সরকার জানান,জায়গাটি নিয়ে অনেক দিন থেকে ঝামেলা হচ্ছে। জমিটি আমার কেনা। যে পরিমান জমি কিনেছি,নক্সাতে তার থেকে একটু বেশিই আছে।

সেটি আমার দখলে ছিলো। আর এখনো সেগুলো আমার দখলেই আছে। সেগুলোতেই নির্মাণ কাজ করছিলাম। আমি কারো জমি দখল করি নাই। বরং তারাই অন্যায় দাবি করছে। কবলামূলে এই জমির হকদার আমি। আমাকে বঞ্চিত করা হলে এই জমির মালিক হবে মূল মালিক। আর আমি তাদের কাছ থেকেই জমিটি ক্রয় করেছি। এখানে তাদের আসার কোন সুযোগ নেই বলে মনে করি। এটা নিয়ে একাধিকবার মিটিং সিটিং হয়েছে। মিটিংয়ে গ্রাম্য মাতবররা জমিটি বরাবরই আমার দখলে দিয়ে গেছে এবং অদবধি তা আমার দখলেই আছে। সম্প্রতি তারাই আমার নির্মাণ কাজে বাঁধা প্রদান করছে।

মৈনম ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ইয়াছিন আলী রাজা বলেন, যেহেতু তিনি নওগাঁ জজ কোর্টে এবং থানায় অভিযোগ করেছেন, এখন আইনগতভাবে বিষয়টি মোকাবেলা করতে হবে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মান্দা থানার এ এসআই আব্দুল মালেক বলেন , মঙ্গলবার সকালে থানা চত্তরে উভয় পক্ষের মাতবরসহ বৈঠকে বসা হয়েছিল। কিছু কাগজপত্র দেখা হয়েছে। সমঝোতার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করা হচ্ছে।

নওগাঁর পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আবদুল মান্নান মিয়া বিপিএম বলেন , বিষয়টি সমাধানে বিধিমোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মান্দা সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার এবং ওসিকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। যদি সমাধান না হয়, অভিযোগকারী তার প্রয়োজনে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

আরও খবরঃ

Leave a Comment